১ লক্ষ থেকে ১ লক্ষ ৫০
Gaming PC , PC Build

১ লক্ষ থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজারের মধ্যে গ্রাফিক্স কাজের জন্য পিসি তৈরি করুন

১ লক্ষ থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা প্রাইস রেঞ্জে একটি গ্রাফিক্স ডিজাইন পিসি তৈরি করতে হলে নিম্নলিখিত কিছু মুদ্রণের জন্য উপযুক্ত কম্পোনেন্ট ব্যবহার করা যেতে পারে:

  1. প্রোসেসর (CPU): গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য একটি কম্পিউটার প্রোসেসর যে কঠিন এবং দ্বি-কোর বা তার অধিক কোর সম্পর্কে বেশি ধরনের কাজ করতে পারে সেটি উপযুক্ত হতে পারে। এছাড়া, গ্রাফিক্স ডিজাইনে ব্যবহার করা জন্য প্রোসেসরের ক্লক স্পিড ও ক্যাশ মেমোরি দেখা গুরুত্বপূর্ণ।
  2. গ্রাফিক্স কার্ড (GPU): গ্রাফিক্স ডিজাইনে কাজ করার জন্য প্রোফেশনাল গ্রাফিক্স কার্ড প্রয়োজন, যা বেশি গ্রাফিক্স প্রসেসিং ক্ষমতা এবং গ্রাফিক্স ডিজাইন সফটওয়্যারের সাথে সাথে কাজ করতে পারে। NVIDIA এবং AMD এর গ্রাফিক্স কার্ডগুলি পুরস্কৃত সেগমেন্টে পণ্য উপলব্ধ আছে।
  3. র‍্যাম (RAM): যতটুকু বেশি RAM ততটুকু বেশি গ্রাফিক্স ডিজাইন প্রসেসিং ক্ষমতা থাকবে। কমপ্যাক্টেড ফাইল সম্প্রেষণ, বিশাল ইমেজ বা ভিডিও সম্পাদনা, বেশি সংখ্যক অবজেক্ট স্প্রাইট এবং লেয়ার ইত্যাদি একত্রিত কাজে অধিক RAM প্রয়োজন হতে পারে।
  4. স্টোরেজ (হার্ড ড্রাইভ বা SSD): একটি দ্বি-ড্রাইভ সিস্টেম (সস্তা সাতার) সাধারণভাবে প্রয়োজন, সত্যিকার কাজের স্পেসের দিকে দেখে একটি SSD (Solid State Drive) প্রাথমিক স্টোরেজ ডিভাইস হতে পারে, যা দ্রুত অ্যাকসেস করার সুযোগ করে।
  5. পাওয়ার সাপ্লাই: উপযুক্ত ওয়াটেজের পাওয়ার সাপ্লাই প্রয়োজন যাতে সিস্টেমটি সঠিকভাবে চলতে পারে।
  6. মনিটর: গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য একটি উচ্চ রেজোলিউশনের মনিটর উপযুক্ত হতে পারে, যাতে আপনি আপনার প্রকল্পগুলি ভাল ভাবে দেখতে পারেন।
  7. কেবল এবং কনেক্টর: সঠিক গ্রাফিক্স কার্ড স্লটে সংযোজন করার জন্য একটি সামান্য সাইজের পিসি কেবল এবং উপযুক্ত কনেক্টর প্রয়োজন হবে।
  8. কেস (ক্যাসিং): আপনার পিসি কেসটি প্রোপার গ্রাফিক্স কার্ড এবং কম্পোনেন্টগুলি সংযোজন করতে সমর্থ হতে হবে।

উল্লিখিত উপায়ে, আপনি একটি প্রোফেশনাল গ্রাফিক্স পিসি তৈরি করতে পারেন যা গ্রাফিক্স ডিজাইনের জন্য উপযুক্ত হবে এবং আপনার প্রয়োজনীয় কাজগুলি সঠিকভাবে পারফর্ম করতে পারবে। এছাড়া, সম্মান্য কম্পিউটার রিটেল স্টোর বা কাস্টম পিসি তৈরি করার কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে নির্দিষ্ট প্রয়োজনীয় কাম্পোনেন্টগুলি নির্বাচন করা সহায়ক হতে পারে।

১ লক্ষ থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজারের মধ্যে গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য কেমন প্রোসেসর নিতে হবে?

গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য একটি প্রোসেসর নির্বাচন করার সময়, প্রোসেসরের গুরুত্বপূর্ণ কিছু মৌলিক বৈশিষ্ট্য রাখতে গুরুত্ব দেওয়া হয়:

  1. কোর সংখ্যা: গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য একটি প্রোসেসর যে কঠিন এবং দ্বি-কোর বা তার অধিক কোর সম্পর্কে বেশি ধরনের কাজ করতে পারে সেটি উপযুক্ত হতে পারে। গ্রাফিক্স ডিজাইন সফটওয়্যারে বেশি কোরের প্রোসেসর সাধারণভাবে স্পিড এবং কার্যক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।
  2. ক্লক স্পিড: প্রোসেসরের ক্লক স্পিড গুরুত্বপূর্ণ, যেহেতু এটি প্রোসেসিং স্পীড নির্ধারণ করে। সবেময় সর্বোচ্চ ক্লক স্পিড নির্বাচন করা হয়, তাতে গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজগুলি পর্যাপ্ত দ্রুততা সাধারণভাবে পাবে।
  3. ক্যাশ মেমোরি: প্রোসেসরের ক্যাশ মেমোরির আপাতত হ্রাস বেশি হওয়া উচিত নয়, কারণ এটি গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজে সাহায্য করে ডেটা গুলি প্রসেস করতে।
  4. ব্র্যান্ড এবং মডেল: প্রোসেসরের ব্র্যান্ড এবং মডেল সম্মান্য এবং নিশ্চিত প্রয়োজনীয় গ্রাফিক্স ডিজাইন প্রোগ্রামের সাথে সমমঞ্জুষিত হতে হবে। Intel এবং AMD এর প্রোসেসরগুলি ব্যবহার করা হতে পারে।

উল্লিখিত কিছু উপায়ে, আপনি ১ লক্ষ থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা প্রাইস রেঞ্চে একটি গ্রাফিক্স ডিজাইন পিসি তৈরি করতে পারেন। প্রোসেসরের সাথে একটি প্রোফেশনাল গ্রাফিক্স কার্ড সংযোজন করে একটি সার্টআপ তৈরি করতে পারেন, যা গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজে সুসংগত।

RAM কত GB নিতে হবে?

গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য সঠিক RAM পরিমাণের নির্ধারণ করতে হলে কিছু কার্যকারী বিবেচনা করা উচিত:

  1. সফটওয়্যার এবং প্রয়োজনীয় কাজের ধরন: কোন গ্রাফিক্স ডিজাইন সফটওয়্যার ব্যবহার করতে চান তা গভীরভাবে বিবেচনা করা প্রয়োজন। বিভিন্ন সফটওয়্যারের আবশ্যক মিনিমাম রেকমেন্ডেশনস বিভিন্ন হতে পারে।
  2. সম্প্রতি ব্যবহৃত গ্রাফিক্স ডিজাইন প্রকল্পের গজ্যবেশক: বড় ফাইল সম্প্রতি কতটি র‍্যাম ব্যবহার করা হয় তা আপনার সম্প্রতি ব্যবহৃত গ্রাফিক্স ডিজাইন প্রকল্পের গজ্যবেশকের ভিত্তিতে বের করা যেতে পারে।
  3. প্রোসেসর এবং গ্রাফিক্স কার্ডের ক্ষমতা: প্রোসেসরের ক্ষমতা এবং গ্রাফিক্স কার্ডের ধরনের প্রয়োজনীয় RAM পরিমাণ প্রভাবিত করতে পারে। উচ্চ ক্ষমতার প্রোসেসর এবং গ্রাফিক্স কার্ড পরিশেষে বেশি RAM প্রয়োজন হতে পারে।

সাধারণভাবে, গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য কমপ্যাটিবল এবং কার্যকরী একটি সিস্টেম তৈরি করতে গভীরভাবে বিবেচনা করা হলে 16GB থেকে 32GB র‍্যাম প্রয়োজনের হতে পারে। এটি মূলত কোন গ্রাফিক্স ডিজাইন সফটওয়্যার ব্যবহারের ক্ষমতা, ফাইল গজ্যবেশ এবং আপনার প্রয়োজনমত কাজের গ্যাপ বিবেচনা করে নির্ধারণ করা উচিত।

SSD Or HDD কোনটা নিতে হবে?

গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য SSD (Solid State Drive) নিতে হলে হয়েছে প্রথম পছন্দ। এটি একটি দ্রুত, স্থায়ী এবং বেশি ব্যবহারিত স্টোরেজ সলিউশন। নিম্নে কিছু কারণ উল্লেখ করা হল, গ্রাফিক্স ডিজাইনে SSD ব্যবহারের:

  1. দ্রুততা: SSD এক্সেস টাইম বেশি কম এবং ডেটা প্রবাহনের দ্বারা দ্রুতভাবে পাঠানো যেতে পারে, যা গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজে গুরুত্বপূর্ণ।
  2. স্থায়ীতা: SSD মেকানিক্যাল পার্ট নেই, এটি কার্যকরী এবং দ্রুত ডেটা অ্যাক্সেস সরবরাহ করে, এবং তার সাথে সাথে প্রতিস্থায়ী হতে থাকে।
  3. দুর্বলতা: SSD নকল হওয়ার সম্ভাবনা কম, কারণ এটি মেকানিক্যাল পার্ট নেই এবং শক্তিশীলতা বেশি।
  4. এনক্রিপ্টড সুরক্ষা: SSD এর অনেকগুলি মডেলে ডেটা এনক্রিপ্ট করতে পারে, এটি আপনার ডেটা সুরক্ষিত রেখে থাকতে সহায়ক হতে পারে।

এছাড়া, গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজের জন্য ডেটা স্টোরেজের ক্ষেত্রে স্থায়ীতা, দ্রুততা, এবং কার্যক্ষমতার দিকে ভিত্তি করে SSD একটি বেশি প্রয়োজনীয় বিকল্প।

তবে, যদি বাড়তি স্টোরেজ প্রয়োজন হয় এবং বাজেট একটি বড় বৈকল্পের দরকার হয়, তাহলে আপনি অপটিং সিস্টেমের জন্য একটি HDD (Hard Disk Drive) এরও ব্যবহার করতে পারেন। HDD বেশি স্টোরেজ প্রদান করতে পারে এবং সম্মান্য দামে পাওয়া যায়, তবে এটি স্লোয় এবং ডেটা অ্যাক্সেসের সময়ে বেশি সময় লাগে এবং মেকানিক্যাল পার্ট আছে, তাহলে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

সুতরাং, প্রাধান্য দেওয়া হবে SSD এর প্রথম পছন্দে, এবং প্রয়োজনমত্রূপ SSD এর সাথে একটি বড় ক্যাপাসিটি এবং স্থায়ীতার জন্য একটি HDD ব্যবহার করা যেতে পারে।

মনিটর কেমন নিতে হবে?

গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজের জন্য সঠিক মনিটর নিবেন এটি গুরুত্বপূর্ণ, যেহেতু আপনি আপনার প্রকল্পগুলি ভাল ভাবে দেখতে পারেন এবং ডিজাইন কাজগুলি প্রস্তুত করতে পারেন। কিছু গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য নিম্নে উল্লিখিত:

  1. রেজোলিউশন: একটি উচ্চ রেজোলিউশনের (উচ্চ পর্যায়ের পিক্সেল) মনিটর নিন, যা আপনার ডিজাইনের বিস্তৃতি এবং সময়ের সাথে প্রাকটিকাল হতে সহায়ক হবে।
  2. প্যানেল টাইপ: IPS (In-Plane Switching) এবং OLED এই প্যানেল টাইপের মনিটরগুলি রঙ্গ এবং ভিজুয়াল অভিজ্ঞানের জন্য অত্যন্ত ভাল হয়। আপনার কাজের জন্য এই প্যানেল টাইপ একটি বেশি প্রাথমিক হতে পারে।
  3. সাইজ: আপনার কাজের স্থানের মধ্যে প্রয়োজনের মতো একটি মনিটরের সাইজ নিন। বড় মনিটর আপনাকে বিস্তৃত কাজের জন্য বেশি জাগা দেবে, কিন্তু এর সাথে সাথে সঠিক ভিউইং ডিস্ট্যান্স প্রভৃতি মেনে চলতে হবে।
  4. কালার প্যানেল ব্যাকলাইট: কালার প্যানেল ব্যাকলাইট গুরুত্বপূর্ণ, যা রঙ্গের সঠিক প্রদর্শনে সহায়ক। Adobe RGB বা sRGB এর সাথে সম্পর্কিত ব্যাকলাইট গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে, কারণ এটি আপনার কাজের সঠিক রঙ প্রদর্শন করতে সহায়ক হবে।
  5. ফ্রেমলেস ডিজাইন: একটি ফ্রেমলেস ডিজাইনের মনিটর একটি অভ্যন্তরীণ চোখের দৃশ্যকে আকর্ষণীয় করতে সহায়ক হতে পারে এবং আপনার ডিজাইনের অভিজ্ঞান বাড়াতে সহায়ক হতে পারে।
  6. অতিসহজ কোণদৃষ্টি: মনিটরের ভিউয়িং কোণ গুরুত্বপূর্ণ, যেহেতু আপনার দেখা দরকার হবে প্রজেক্টেড ডিজাইন সঠিকভাবে।
  7. কাজের ধরন: আপনি যেসব কাজ করতে চান, তার ভিত্তিতে মনিটর নিতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, প্রিন্ট ডিজাইনের জন্য প্রিন্ট ডায়মেনশন সমর্থন করার একটি প্রিন্টাবল মনিটর ব্যবহার করা যেতে পারে।

এই বৈশিষ্ট্যগুলি মনে রাখেন এবং আপনার প্রয়োজনের মধ্যে এই বৈশিষ্ট্যগুলির ভিত্তিতে মনিটর নির্ধারণ করতে সাহায্য নিন। এছাড়াও, আপনি একটি ভাল মনিটর নিতে পর্যাপ্ত বৈজ্ঞানিক এবং নিশ্চিত সেলার থেকে নিতে পারেন যেখানে আপনি মনিটরের বৈশিষ্ট্য এবং ডিজাইন সম্পর্কিত জিজ্ঞাসা করতে পারেন।

সাধারণত কেমন বা কোন মডেলের গ্রাফিক্স কার্ড নিতে হবে?

একটি ভাল গ্রাফিক্স কার্ড নিতে হলে, গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজের জন্য কিছু মৌলিক বৈশিষ্ট্য বিবেচনা করতে হবে:

  1. ক্যাপাবিলিটি এবং ক্ষমতা: গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজের জন্য উচ্চ ক্যাপাবিলিটি এবং ক্ষমতা থাকা গ্রাফিক্স কার্ড প্রাথমিক। এটি বিভিন্ন গ্রাফিক্স সফটওয়্যারে সঠিকভাবে চলতে সহায়ক হবে এবং বেশি কমপ্লেক্স ডিজাইন কাজগুলি সমর্থন করতে সাহায্য করবে।
  2. মেমোরি (VRAM): গ্রাফিক্স ডিজাইনের জন্য প্রয়োজনীয় বেশি VRAM থাকতে হবে, কারণ বড় ফাইল বা সম্পর্কিত ডাটা প্রসেস করার জন্য এটি প্রয়োজন।
  3. রেজোলিউশন এবং মাল্টিমিডিয়া প্রদর্শন: আপনি যদি উচ্চ রেজোলিউশন এবং মাল্টিমিডিয়া ডিজাইনে কাজ করেন, তবে গ্রাফিক্স কার্ডটির মাধ্যমে সঠিকভাবে প্রস্তুত করা প্রয়োজন।
  4. কম্প্যাটিবিলিটি: আপনার ব্যবহার করা সফটওয়্যার এবং গ্রাফিক্স কার্ডের মধ্যে কম্প্যাটিবিলিটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। নিশ্চিত করুন যে গ্রাফিক্স কার্ডটি আপনার ব্যবহার করা সফটওয়্যারের সাথে কাম করবে।
  5. ব্র্যান্ড এবং মডেল: AMD এবং NVIDIA হলে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের গ্রাফিক্স কার্ড উপলব্ধ, যেগুলির মধ্যে কিছু বিশেষ বৈশিষ্ট্য থাকতে পারে। আপনি একটি প্রয়োজনীয় বৈশিষ্ট্যগুলি অনুসরণ করে নিজের প্রয়োজনমত একটি ব্র্যান্ড এবং মডেল নিতে পারেন।

এই বৈশিষ্ট্যগুলির ভিত্তিতে, আপনি AMD Radeon এবং NVIDIA GeForce এই ব্র্যান্ডের কিছু প্রয়োজনীয় ক্লাসের গ্রাফিক্স কার্ড দেখতে পারেন। উল্লিখিত গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্যগুলি উল্লেখ করে নিজের প্রয়োজনমত একটি গ্রাফিক্স কার্ড নির্ধারণ করুন।

এবং

একটি সাধারণ গ্রাফিক্স ডিজাইন পিসির জন্য নোটবুক অথবা ডেস্কটপ কম্পিউটারের জন্য মিনিমাম গ্রাফিক্স কার্ডের প্রয়োজন হতে পারে যদি আপনি যেসব সাধারণ গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজ করতে চান:

  1. 2D গ্রাফিক্স ডিজাইন: যদি আপনি মূলত 2D গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজ করেন, যেমন লোগো ডিজাইন, স্লাইড ডিজাইন, পোস্টার ডিজাইন, ইত্যাদি, তাদের জন্য সাধারণ 2D গ্রাফিক্স কার্ড সম্পূর্ণভাবে যথেষ্ট হতে পারে।
  2. সাধারণ গেমিং: যদি আপনি গেমিং করতে চান, তবে উন্নত গেমিং কার্ড প্রয়োজন হতে পারে, কারণ গেম গ্রাফিক্স ডেমান্ডিং হতে পারে। এই জন্য আপনি সাধারণ গেমিং গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহার করতে পারেন।
  3. সাধারণ ভিডিও সম্পাদনা: আপনি যদি সাধারণ মাত্রা সম্পাদনার জন্য ভিডিও বা ছবি সম্পাদনা করেন, তবে একটি সাধারণ গ্রাফিক্স কার্ড সম্পূর্ণভাবে যথেষ্ট হতে পারে।

সাধারণ গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজের জন্য, স্ট্যান্ডার্ড মডেলের গ্রাফিক্স কার্ড যেগুলি সম্প্রতি প্রয়োজন হতে পারে তা নিতে পারেন, যেমন NVIDIA GeForce GTX সিরিজ বা AMD Radeon RX সিরিজের গ্রাফিক্স কার্ডগুলি। আপনি বৈজ্ঞানিক এবং নিশ্চিত বিক্রেতা বা নির্মাতার সাথে যোগাযোগ করে এই ধরণের গ্রাফিক্স কার্ডগুলি নিতে পারেন যা আপনার বাজেটে এবং কাজের প্রয়োজনীয়তা মেলে।

এবং সব কিছু আপনার বাজেট এবং চাহিদার উপর নির্ভর করবে । আপনি আপনার প্রয়োজন মত পিসি তৈরির জন্য যোগাযোগ করুন CleansBuy Computer City তে ।

No Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen − twelve =

HomeWishlistCompare
Search
To Top