প্রসেসর কী? সাধারণত কোন কোন কম্পানির প্রসেসর বাজারে আছে এবং তা কেমন দামের মধ্যে?
প্রসেসর কী? সাধারণত কোন কোন কম্পানির প্রসেসর বাজারে আছে এবং তা কেমন দামের মধ্যে?
Processor

প্রসেসর কী? সাধারণত কোন কোন কম্পানির প্রসেসর বাজারে আছে এবং তা কেমন দামের মধ্যে?

প্রসেসর কী?

প্রসেসর (Processor) হল একটি ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি, যা কম্পিউটার বা অন্যান্য ইলেকট্রনিক ডিভাইসের মূল কাজ করে। এটি কম্পিউটারের মৌখিক ও গঠনিক কাজ সম্পাদন করে এবং প্রোগ্রামগুলির নির্দিষ্ট কার্যকারী ব্যাপারগুলি প্রকাশ করে।

এটি মেমোরি (RAM) থেকে তথা কম্পিউটারের মেমোরি থেকে ডেটা এবং কমান্ড পড়ে এবং এই ডেটা ও কমান্ড গঠনিক সিস্টেমে প্রসেস করে সঠিক প্রকারের ডেটা বা আউটপুট প্রস্তুত করে। প্রসেসর একে একে প্রক্রিয়া করে এবং মিলিয়ন গুন প্রক্রিয়া সম্পাদন করতে সক্ষম হয় যার ফলে প্রসেসর অনেক দ্রুত কাজ করতে পারে।

প্রসেসরের মূল কাজ হল কম্পিউটারের সকল প্রকার প্রক্রিয়া, মানে অ্যারিথমেটিক, লজিক্যাল বা অন্যান্য প্রক্রিয়া সম্পাদন করা। প্রসেসরের দক্ষতা বা গতি কম্পিউটারের কাজকর্মে ভুমিকা পালন করে, এটির গতির উপর ভিত্তি করে কম্পিউটারের প্রসেসিং ক্ষমতা নির্ধারণ করা হয়।

প্রসেসরের একটি মুখ্য মাত্রা হলো ক্লক স্পীড, যা হের্টজ (Hz) বা মেগাহের্টজ (MHz) বা গিগাহের্টজ (GHz) এ প্রকাশিত হয়। এটি প্রসেসরের প্রতিটি সাইকেলে যা করা হয়, প্রক্রিয়ার দ্রুততা নির্ধারণ করে। আরও উন্নত প্রসেসর গণনা করার জন্য মাল্টি-কোর প্রসেসর (Multi-core Processor) ব্যবহার করা হয়, যা একাধিক প্রসেসর কোর অন্তর্ভুক্ত করে এবং এটি একসাথে একাধিক কাজ করতে সক্ষম করে।

প্রসেসর প্রয়োজন অনুসারে বিভিন্ন ধরণের হয়, যেমন – সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট (CPU), গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট (GPU), নেটওয়ার্ক প্রসেসিং ইউনিট (NPU), এবং অন্যান্য স্পেশালাইজড প্রসেসিং ইউনিট। প্রতিটি প্রসেসিং ইউনিট বিশেষ ধরণের কাজের জন্য উদ্দীপক করা থাকে।

মোট করা যায়, প্রসেসর হলো একটি কম্পিউটারের মূল প্রকারক, যা ডেটা প্রক্রিয়া করে এবং কম্পিউটারের কাজ সম্পাদনে সাহায্য করে।

প্রসেসরের কাজ কী?

প্রসেসর বা সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট (CPU) কম্পিউটারের মৌখিক এবং গঠনিক কাজ সম্পাদন করে। এটি কম্পিউটারের মৌলিক অংশ এবং একটি প্রসেসিং ইউনিট যা কম্পিউটারের যেকোনো কাজ নিয়ন্ত্রণ এবং সম্পাদন করতে ব্যবহার হয়।

প্রসেসরের কাজের মধ্যে নিম্নলিখিত কাজগুলি সম্পর্কিত:

  1. ইনস্ট্রাকশন এক্সিকিউশন: প্রসেসর কম্পিউটারের ইনস্ট্রাকশনগুলি এক্সিকিউট করে, অর্থাৎ ইনস্ট্রাকশনগুলি যে কাজ করতে হবে তা বোঝা এবং সম্পাদন করা।
  2. গণনা: প্রসেসর গণনা প্রক্রিয়ায় ডেটা সংগঠন এবং গণনা সম্পাদন করে। এটি বিভিন্ন গণনা অপারেশন যেমন যোগ, বিয়োগ, গুণ, ভাগ এবং অন্যান্য গণনা সম্পাদন করতে ব্যবহার করা হয়।
  3. মেমোরি এক্সেস: প্রসেসর মেমোরি থেকে ডেটা পড়ে এবং ডেটা লেখা সম্পাদন করতে ব্যবহার হয়। মেমোরি থেকে ডেটা পড়া এবং লেখা প্রসেসরের কাজের একটি মৌলিক অংশ।
  4. লজিকাল কন্ট্রোল: প্রসেসর প্রোগ্রামের লজিকাল ফ্লো নিয়ন্ত্রণ করে, যাতে প্রোগ্রাম এক্সিকিউশনের প্রক্রিয়া নির্দিষ্ট ক্রমে এবং সঠিকভাবে প্রবৃত্তি করে।
  5. সময়সূচী নির্ধারণ: প্রসেসর সময় নির্ধারণ করে যেখানে প্রোগ্রামের কোন অংশ কখন এবং কোনভাবে এক্সিকিউট হবে।
  6. ইনপুট এবং আউটপুট নিয়ন্ত্রণ: প্রসেসর ইনপুট ডেটা প্রসেস করে এবং আউটপুট ডেটা তৈরি করে, যা ব্যবহারকারীর সাথে ইন্টারফেস করে।

সার্ভার, কম্পিউটার, মোবাইল ডিভাইস, প্রিন্টার, গেম কনসোল, এবং অন্যান্য ডিভাইসে প্রসেসরের ভুমিকা গুরুত্বপূর্ণ এবং মৌলিক। এটি কাজের সম্পাদন নিশ্চিত করে যা কম্পিউটার সিস্টেমের সামঞ্জস্যভাবে কাজ করতে সাহায্য করে।

কীভাবে প্রসেসর কাজ করে?

প্রসেসর একটি কম্পিউটার কার্যকরী উপাদান যা কম্পিউটারের কাজ নিয়ন্ত্রণ এবং সম্পাদন করে। এটি একটি অভিযান্ত্রিক উপাদান যা ডেটা প্রসেস করে, গণনা সম্পাদন করে এবং যেকোনো কাজ সম্পাদন করার জন্য প্রোগ্রামগুলি অনুসরণ করে। প্রসেসর এই প্রক্রিয়াগুলি করতে লোজিক গেট, গণনা প্রয়োগ করে এবং ডেটা সংগঠন এবং সংরক্ষণ সম্পাদন করে।

প্রসেসরের কাজের প্রক্রিয়া নিম্নলিখিত ধাপে সম্পন্ন হয়:

  1. ইনস্ট্রাকশন এক্সিকিউশন: প্রসেসর একটি কর্মক্ষম ক্যাচ মেমোরি থেকে ইনস্ট্রাকশন পড়ে এবং এই ইনস্ট্রাকশনগুলি একে একে এক্সিকিউট করে। প্রতিটি ইনস্ট্রাকশন নির্দিষ্ট কাজ নিয়ন্ত্রণ করে, যেমন যোগ, গুন, বিয়োগ, লজিকাল গণনা ইত্যাদি।
  2. ডেটা পাথওয়ে: প্রসেসর ইনস্ট্রাকশনগুলি প্রসেস করতে ডেটা পাথ মেমোরি এবং প্রসেসরের মধ্যে সঞ্চিত হয়।
  3. গণনা এবং নিয়ন্ত্রণ: প্রসেসর ইনস্ট্রাকশনগুলি এক্সিকিউট করতে গণনা এবং নিয়ন্ত্রণ ব্যবহার করে। গণনা অপারেশন সংখ্যাগুলি সম্পাদন করতে ব্যবহার করা হয়, এবং নিয়ন্ত্রণ বিশেষ করে ইনস্ট্রাকশনগুলির ক্রম এবং বৈশিষ্ট্য নির্ধারণ করে।
  4. মেমোরি এক্সেস: প্রসেসর ডেটা মেমোরি থেকে পড়ে এবং ডেটা লেখা করতে পারে। মেমোরি এক্সেস একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রক্রিয়া, কারণ ডেটা সংরক্ষণ এবং প্রসেস প্রক্রিয়া এই দুটি স্থানে ঘটতে হয়।
  5. আউটপুট প্রসেসিং: প্রসেসর আউটপুট ডেটা উপকরণে সাজানোর কাজ করে, যাতে ব্যবহারকারী প্রক্রিয়ার ফলাফল পেতে পারে।

এই প্রক্রিয়াটি খুবই দ্রুতভাবে ঘটে, আসল প্রসেসরের গতি এবং কার্যক্ষমতা উপর নির্ভর করে। সেবার প্রসেসরের গতি অধিক থাকলে সেবাগুলি দ্রুতভাবে সম্পাদন করতে পারে, এবং কম সেবার প্রসেসরের গতি থাকলে সামগ্রিক কম্পিউটারের গতি কম হতে পারে।

প্রসেসর কত সালে আবিষ্কার করা হয়?

প্রসেসরের আবিষ্কার একটি দীর্ঘ ইতিহাস রেখেছে। আধুনিক ইলেকট্রনিক প্রসেসরের আবিষ্কার তদন্তের মধ্যে একের মতো অনেক বিজ্ঞানীর যোগাযোগ রয়েছে।

প্রথম ইলেকট্রনিক প্রসেসর ENIAC (Electronic Numerical Integrator and Computer) ছিল, যা 1946 সালে মার্চ মাসে প্রস্তুত করা গিয়েছিল। এটি মৌখিক সিস্টেমে কাজ করতো এবং ধারক টিউব ব্যবহার করতো।

তবে, এই প্রথম প্রসেসর একটি স্থায়ী প্রকারক ছিল এবং এটি অন্তর্ভুক্ত ট্রানজিস্টর না ছিল। ট্রানজিস্টর হল প্রসেসর প্রয়োজনীয় কম্পোনেন্টের একটি গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি এবং এটি প্রসেসরের আধুনিক রূপান্তর এবং পারফরমেন্স উন্নতির মূল কারণ।

ট্রানজিস্টর ব্যবহার করা প্রথম ইলেকট্রনিক প্রসেসর UNIVAC (Universal Automatic Computer) হয়েছিল, যা 1951 সালে উদ্বোধিত হয়েছিল। এটি ইতিহাসে প্রথম ট্রানজিস্টর ব্যবহার করা এবং ডিজিটাল কম্পিউটার ছিল।

পরবর্তীতে ট্রানজিস্টর জন্মায় দিয়েই কম্পিউটারের প্রসেসর প্রায় অতিক্রান্ত হয়ে উন্নত হয়েছে, যা আধুনিক কম্পিউটারের মৌলিক অংশের অনেক গুণগত উন্নতির কারণ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়োগশালা অনুশেষকের বৃহত্তর গবেষণা ও প্রয়োগের ফলে, আধুনিক প্রসেসর স্বচ্ছন্দ সময়ে অনেক দ্রুত বিকাশ করেছে। আজকের প্রসেসর সমৃদ্ধি এবং সম্প্রসারণের জন্য আমরা মাল্টি-কোর, হাইপারথ্রেডিং, প্রোসেসরের এক্সেস কন্ট্রোল এবং অন্যান্য উন্নত প্রযুক্তিগুলি দেখতে পাই। প্রসেসর বিশেষভাবে কম্পিউটার বিজ্ঞান, আধুনিক প্রোগ্রামিং ও সফ্টওয়্যার ডেভেলপমেন্ট এ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

প্রসেসর কত প্রকার ও কী কী?

প্রসেসর একাধিক প্রকারের হতে পারে, প্রধানত তার কাজের ধরন অনুযায়ী এবং ব্যবহারকারীর প্রয়োজনে ভিন্ন প্রকারের কনফিগারেশন অনুযায়ী। নিম্নলিখিত কিছু প্রসেসরের প্রধান প্রকার রয়েছে:

  1. সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট (CPU): এটি কম্পিউটারের মৌখিক এবং গঠনিক কাজ সম্পাদন করে এবং কম্পিউটারের মৌলিক অংশ। প্রধান প্রসেসর হিসেবে ব্যবহার করা হয়।
  2. গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট (GPU): এটি গ্রাফিক্স কাজে বিশেষভাবে উপস্থিত একটি প্রসেসর, যা গ্রাফিক্স প্রক্রিয়া সম্পাদন করে যা বিশেষভাবে ভিডিও খেলাধুলা, ভিডিও সম্পাদনা, প্রস্তুতিকরণ এবং গ্রাফিক্স সম্পর্কিত কাজে ব্যবহার করা হয়।
  3. নেটওয়ার্ক প্রসেসিং ইউনিট (NPU): এটি নেটওয়ার্কের কাজে বিশেষভাবে উপস্থিত একটি প্রসেসর, যা সম্পর্কিত কাজে ব্যবহার করা হয়, যেমন মেশিন লার্নিং অ্যালগরিদম সম্পাদন করা, সম্প্রসারণ বা প্রদর্শন এবং অন্যান্য নেটওয়ার্ক সম্পর্কিত কাজ।
  4. অস্কিলার প্রসেসর: এই প্রসেসর এক কাজ একই সময়ে সম্পাদন করতে পারে, এবং এটি কম্পিউটারের স্থায়ী প্রকারকে প্রতিস্থাপন করে।
  5. সুপারস্কেলার প্রসেসর: এই প্রসেসর একে একে কাজ করতে পারে এবং এটি প্রসেসরের কাজক্ষমতা বৃদ্ধি করতে একাধিক পাইপলাইন ব্যবহার করতে পারে।
  6. মাল্টি-কোর প্রসেসর: এই প্রসেসর একাধিক প্রকারকে একসাথে পারফর্ম করতে পারে, যার ফলে কম্পিউটারের সামঞ্জস্যতা বৃদ্ধি পাওয়া যায়।
  7. হিট প্রসেসর: এই প্রসেসর উচ্চ ধারণ ক্ষমতা এবং কার্যকরী তাপমাত্রা প্রয়োগ করে, যা প্রসেসরের কর্মক্ষমতা উন্নত করে।

এই ছয়টি প্রধান প্রসেসর প্রকার একে অপরের থেকে ভিন্ন ধরণের কাজে ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও, বিশেষ প্রসেসর প্রকার ও প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী অনেক আরও প্রসেসর ক্লাস এবং মডেল আছে।

বাজারে কোন কোন কম্পানির প্রসেসর পাওয়া যায়?

বাজারে অনেক প্রস্তুতকারক কোম্পানির প্রসেসর পাওয়া যায়, যার মধ্যে কিছু প্রমিনেন্ট কোম্পানির নাম নিম্নে দেওয়া হল:

  1. Intel: ইন্টেল একটি প্রয়োজনীয় নাম এবং বৃদ্ধি পাচ্ছে এমন একটি প্রস্তুতকারক কোম্পানি। ইন্টেলের Core i সিরিজ এবং Xeon সিরিজ গুলি প্রসেসিং ক্ষমতা ও পারফরমেন্সে উন্নতি দেয়।
  2. AMD: এএমডি (Advanced Micro Devices) ও একটি প্রমিনেন্ট প্রস্তুতকারক কোম্পানি, যা ইন্টেলের সাথে মুখোমুখি প্রতিস্থান পেয়েছে। এএমডির Ryzen সিরিজ এবং EPYC সিরিজ বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং গেমিং এবং সার্ভার কাজে জনপ্রিয়।
  3. Apple: এপল আপনার উপকরণের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে তাদের স্বনামধন্য M1 প্রসেসর ব্যবহার করতে পারেন, যা উচ্চ সম্প্রসারণ ক্ষমতা এবং বেশি ব্যাটারি জীবন প্রদান করতে প্রস্তুত।
  4. Qualcomm: কোয়ালকম বিশেষভাবে মোবাইল ডিভাইসে ব্যবহার করা জনপ্রিয়, তাদের Snapdragon প্রসেসর গুলি অনেকটা স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেটে পাওয়া যায়।
  5. NVIDIA: নভিডিয়া প্রধানত গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট (GPU) উন্নতি এবং বৃদ্ধি প্রদান করে, তাদের CUDA আর্কিটেকচার ব্যবহার করে গুণগত গণনা এবং ডিপ লার্নিং জন্য।
  6. IBM: আইবিএম বৃদ্ধি পাচ্ছে উন্নত সার্ভার ও উচ্চ কাস্টমাইজেশন সার্ভিস জন্য তাদের পাওয়ার প্রসেসর সিরিজ দিয়ে।

এই তালিকা সীমাবদ্ধ নয় এবং আরও কোম্পানির প্রসেসর আছে যা বিভিন্ন কাজে ব্যবহার হতে পারে। প্রসেসর ব্র্যান্ডের বেশি জ্ঞান নিতে, আপনি নির্মাতার ওয়েবসাইট দেখতে পারেন এবং তাদের নবীকরণ, প্রযুক্তি এবং উন্নতির নবীকরণ সম্পর্কিত সংবিদ পড়তে পারেন।

বাজারে সাধারণত কত বাজেটের মধ্যে প্রসেসর পাওযায় BDT তে ?

বাজারে প্রসেসরের দাম বিভিন্ন ফ্যাক্টরের উপর নির্ভর করে, যেমন ব্র্যান্ড, মডেল, উন্নতির স্তর, প্রসেসিং ক্ষমতা এবং কর্মক্ষমতা ইত্যাদি। বাংলাদেশে, সাধারণভাবে প্রসেসরের দাম নিম্নলিখিত বাজেটের মধ্যে পাওয়া যায়:

  • মৌলিক অফিস কাজ, ওয়েব ব্রাউজিং, মিডিয়া প্লেব্যাক, বেসিক গেমিং: এই ধরণের কাজের জন্য আপনি সাধারণভাবে 20,000 টাকা থেকে 40,000 টাকা এর মধ্যে প্রসেসর পেতে পারেন।
  • উন্নত প্রসেসিং ক্ষমতা, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ভিডিও সম্পাদনা, গেম ডেভেলপমেন্ট: এই ধরণের উন্নত কাজের জন্য আপনি সাধারণভাবে 40,000 টাকা থেকে 80,000 টাকা এর মধ্যে প্রসেসর পেতে পারেন।
  • বেশি গুণগত প্রসেসিং ক্ষমতা, সার্ভার, সায়েন্টিফিক কৃয়াকলাপ এবং অন্যান্য উন্নত কাজ: এই ধরণের উন্নত প্রসেসিং ক্ষমতা ও কর্মক্ষমতা প্রয়োজন হতে পারে, এই জন্য আপনি সাধারণভাবে 80,000 টাকা থেকে 2,00,000 টাকা এর মধ্যে প্রসেসর পেতে পারেন।

উল্লিখিত দাম আপনার দেশের বাজারের উপর ভিত্তি করে পরিবর্তিত হতে পারে। প্রসেসর কিনতে আপনার প্রয়োজনীয়তা এবং বাজেট নির্ধারণ করতে মানসিক ও আর্থিক প্রস্তুতি করা গুরুত্বপূর্ণ।

 

গেইমিং পিসি ৩০ হাজার থেকে ৫০ হাজারের মধ্যে

No Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three − 1 =

HomeWishlistCompare
Search
To Top